অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস

অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস কি? কিভাবে কাজ করে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস

বন্ধুরা আমরা এখন সবাই কম বেশি কম্পিউটার ব্যাবহার করে থাকি, বিশেষ করে সবাই পারসোনাল কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকি। ল্যাপটপ হোক আর ডেক্সটপ হোক আমরা কিন্তু সবাই এখন কম্পিউটারের ওপর পুরোই নির্ভর হয়ে পড়েছি। তাছাড়া আমরা যে মোবাইল গুলো ব্যবহার করে থাকি সেগুলো কিন্তু একটি কম্পিউটার বলতে পারি আমরা।আমরা কিন্তু অনেক ভাল ভাবেই জানি যে সকল কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস এর মাধ্যমে চলে। কিন্তু আপনি কি জানেন কিভাবে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস কাজ করে? তাই আমি আলোচনা করবো কিভাবে কাজ করে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস কিভাবে কাজ করে?

অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস কি?

অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস
অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস

সবার আগে আমাদের জানা উচিৎ  অপারেটিং সিস্টেম কি? বন্ধুরা অপারেটিং সিস্টেন হচ্ছে এক ধরণের সফটওয়্যার যা কম্পিউটারকে আপনার কমান্ডের আউটপুট করিয়ে থাকে। আপনারা ভাবছেন আপনারা তো কোন কমান্ড দিচ্ছেন না শুধু মাউচ টা ক্লিক করছেন আর কি বোর্ডটা টাইপ করছেন! মূল কথা হচ্ছে বন্ধুরা আপনারা যে মাউচ টা চাপতেছেন সেটাই হচ্ছে কমান্ড, মূলত আমরা যে ওএস ব্যবহার করে থাকি উইন্ডোজ ( বুঝানোর সুবিধার জন্য শুধু উইন্ডোজ এর কথা উল্লেখ করলাম অনেক ধরনের অপারেটিং সিস্টেম হয়ে থাকে ) সেটাতে আগে থেকেই কমান্ড গুলো ইনপুট করা আছে যার দরুন আপনাকে আলাদা করে কোন কমান্ড লিখতে হয় না। কিন্তু আপনি মূলত কমান্ড দিচ্ছেন আপনার কম্পিউটারকে।

ধরুন বন্ধুরা আপনি আপনার কম্পিউটারকে বলছেন গান শুনবো আমাকে গান শুনাও। সেটা করার জন্য আপনি কি করছেন ? শুধু মিউজিক প্লেয়ার ওপেন করে গানটি সিলেক্ট করে দিচ্ছেন, সাথে সাথে আপনার গান টি প্লে হয়ে যাচ্ছে। আর এটাই হচ্ছে অপারেটিং সিস্টেমের কাজ বন্ধুরা, এটাই হচ্ছ্রে অপারেটিং সিস্টেম। যে আপনার কাজ টা করে দিচ্ছে।

আরো কিছু পোস্ট পরে আসুন

 

কিভাবে কাজ করে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস

অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস
অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস

আসলে আমরা মূলত করে থাকি কম্পিউটার টা ওপেন করি যখন যা ইচ্ছে তা ওপেন করে রেখে দিই, কিন্তু একবারও ভাবি না এই অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস টা কিভাবে কাজ করে? আমরা শুধু আমাদের যা ইচ্ছা তার ওপরে চাপিয়ে দিয়ে চলে যাচ্ছি, একের পরে এক টাস্ক ওপেন করে যাচ্ছি । আর অপারেটিং সিস্টেম সেটা প্রসেসিং করে যাচ্ছে। তাহলে বন্ধুরা আসুন যেনে নিই অপারেটিং সিস্টেম কিভাবে কাজ করে?

বন্ধুরা আপনাদেরকে আমি সহজ ভাবে বলছি। ধরুন আপনি কোন একটা ওয়েব সাইটে যাবেন, তাই আপনি আপনার কম্পিউটার টা ওপেন করলেন। এবার আপনার ব্রাউজার তা ওপেন করলেন, এবার আপনার সেই ওয়েবসাইটা ভিজিট করলেন। এবার আসি অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস এর কাজে। আপনি যখন আপনার কম্পিউটার টা ওপেন করলেন আপনি অন বাটন চাপ দিলেন, তখন কম্পিউটার টি র‍্যাম কে ওপেন করে দিল, হার্ডডিস্ক ওপেন করে দিল। এবার এইগুলো গিয়ে কার্ণেল কে নির্দেষ দিল, তখন কার্ণেল গিয়ে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস কে নির্দেষ ডিসপ্লে ওপেন করতে, সাথে সাথে আপনি দেখতে পাচ্ছেন আপনার কম্পিউটার ওপেন হয়ে গেছে। অনেক জটিল প্রক্রিয়া হলেও এটা হতে মাত্র কিছু মিলি সেকেন্ড সময় লাগলো। এবার আপনি কোন একটা ওয়েবসাইটে যাবেন, আপনি আপনার ব্রাউজার টা ওপেন করার জন্য ক্লিক করলেন। এর মানে আপনি আপনার কম্পিউটারকে কমান্ড করেলেন। এবার সেই কমান্ড অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস  কার্ণেল কে দিয়ে দিছে, কার্ণেল এটা হার্ডডিস্ক, র‍্যাম অন্য সবাই কে জানিয়ে দিল এবার এটা হার্ডডিস্ক অবস্থান বের করে দিল এবং ওপেন হবার জন্য বলে দিল কার্ণেল এর কাছে। কর্ণেল এটাকে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস এর কাছে বলে দিচ্ছে। সাথে সাথে আপনি দেখতে পেয়ে যাচ্ছেন আপনার ব্রাউজারটি ওপেন হয়ে গেছে।

মূল কথা বলতে বলতে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস কাজ করে আপনার কম্পিউটারের ম্যানেজারের মত। ধরুন আপনার একটা কোম্পানি আছে আপনি সেই কোম্পানিতে একজনকে চাকরি দিলেন তার কাজ হচ্ছে কাগজ পত্র দেখাশুনা করা। এবার সে শুধু আপনার কোম্পানির কাগজ পত্র গুলো দেখাশোনা করছে। কিন্তু আপনার কোম্পানির আরো অনেক কাজ আছে ধরুন যারা চাকরি করে তাদের কাজ দেখা, তাদের নির্দেষ দেয়া ইত্যাদি। এই কাজ টা কিন্তু করে আপনার ম্যানেজার। সুতরাং ব্রউজার টা শুধু মাত্র একটা কাজ করে, বাকি সব কাজ করে অপারেটিং সিস্টেম বা ওএস

 

 

শেষকথা

আমরা শুধু আমাদের কম্পিউটার টি চালাই হাজার হাজার ট্যাব ওপেন করে রেখে দিই। কিন্তু একবারও ভাবি না এটা কিভাবে কাজ করে ! অপারেটিং সিস্টেমের কারণেই আজ সকল বিষয় গুলো আমাদের কাছে অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে। কিন্তু আগে আমরা এই ভাবে কাজ করতে পারতাম না, কেননা পূর্বে অপারেটিং সিস্টেম এমন ভাবে সহজ করে কিছুই ছিল না। পরের পোস্টে অপারেটিং সিস্টেমের ইতিহাস নিয়ে আপনাদের সামনে আসবো।

 

Sayed.Pappu

1 comment